শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০১:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

ঢাকায় মেট্রোরেলের বগি

নিজস্ব প্রতিবেদক: ১৬ ডিসেম্বর উত্তরা থেকে আগারগাঁও পরীক্ষামূলক চলাচল

করোনা তেমন একটা বাধাগ্রস্ত করতে পারেনি মেগা প্রকল্প মেট্রোরেলের কাজে। নির্ধারিত সময়ের দুই দিন আগেই মেট্রোরেলের প্রথম চালানের ছয়টি বগি ঢাকায় পৌঁছেছে। গতকাল বিকেল ৫টায় বগিগুলো উত্তরার দিয়াবাড়ীর জেটিতে পৌঁছায়। ২৩ এপ্রিল বগিগুলো পৌঁছানোর কথা ছিল বলে জানান ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন ছিদ্দিক।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, প্রথম চালানে মেট্রোরেলের বগি আছে ছয়টি। বাংলাদেশের বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীর শুভক্ষণে আগামী ১৬ ডিসেম্বর প্রথম সেকশন উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেল পরীক্ষামূলকভাবে চালু করার পরিকল্পনা নিয়ে বাস্তবায়নকারী সংস্থা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল) অগ্রসর হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।
মেট্রোরেল প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ২৪ মার্চ পায়রা বন্দরে বগিগুলো পৌঁছে। ছয়টি বগি নিয়ে পায়রা বন্দর থেকে জাহাজটি গত ৩০ মার্চ মংলা বন্দরে পৌঁছে। আর ৩১ মার্চ এগুলো জাহাজ থেকে খালাস করা হয়। পরে বিভিন্ন প্রক্রিয়া শেষে নদীপথে বগিগুলোর পরিবহন শুরু হয়। গত ১৯ এপ্রিল চাঁদপুর এসে পৌঁছায় বগিগুলো। সেখান থেকে নৌপথে গতকাল বুধবার ঢাকা এলো। গত ৪ মার্চ জাপানের কোবে বন্দর থেকে এমভি এসপিএম ব্যাংকক নামে একটি জাহাজযোগে এসব বগি পরিবহন শুরু হয়।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মেট্রোরেল প্রকল্পের জন্য ২৪ সেট ট্রেন তৈরি করছে জাপানের কাওয়াসাকি-মিতসুবিশি। প্রতি সেট ট্রেনের দু’পাশে দু’টি ইঞ্জিন থাকবে। এর মধ্যে থাকবে চারটি করে কোচ। ট্রেনগুলোয় ডিসি ১৫০০ ভোল্ট বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা থাকবে। স্টেইনলেস স্টিল বডির ট্রেনগুলোতে থাকবে লম্বালম্বি আসন।

প্রতিটি ট্রেনে থাকবে দুটি হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত প্রতিটি বগির দু’পাশে থাকবে চারটি করে দরজা। জাপানি স্ট্যান্ডার্ডের নিরাপত্তাব্যবস্থা সংবলিত প্রতিটি ট্রেনের যাত্রী ধারণক্ষমতা হবে এক হাজার ৭৩৮ জন।
ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের সর্বশেষ তথ্যানুসারে, ঢাকার উত্তরা তৃতীয় পর্ব থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রো রেলপথ স্থাপনের কাজ সবমিলে এগিয়েছে প্রায় ৬২ শতাংশ। করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কার মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে দিনে-রাতে প্রকল্প এলাকায় কাজ চলছে। বিশেষ করে মিরপুর, আগারগাঁও অংশে কাজ অব্যাহত রাখতে রাস্তার বিভিন্ন অংশ বন্ধ রাখা হয়েছে।

২২ হাজার কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ের লাইন-৬ অংশটি আগামী ২০২৪ সালে সমাপ্ত হওয়ার কথা। উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০.১০ কিলোমিটার যেতে সব মিলিয়ে ৩৮ মিনিট সময় লাগবে বলে মেট্রোরেলের সাথে সংশ্লিষ্টরা জানান।
বাস্তবায়নকারী সংস্থা জানায়, এমআরটি লাইন-৬ এর কাজ মোট আটটি প্যাকেজে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রথম পর্যায়ে নির্মাণের জন্য নির্ধারিত উত্তরা তৃতীয় পর্ব থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশের পূর্ত কাজ, দ্বিতীয় পর্যায়ে আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত অংশের পূর্তকাজ, ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল সিস্টেম এবং রোলিং স্টক রেল কোচ ও ডিপো যন্ত্রপাতি সংগ্রহও এর মধ্যে রয়েছে।


উত্তরা থেকে কমলাপুর পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রথম মেট্রোরেলের দৈর্ঘ্য হবে সাড়ে ২১ কিলোমিটার। এতে উত্তরা থেকে কমলাপুর পর্যন্ত ১৭টি স্টেশন থাকবে। এর মধ্যে উত্তরা সেন্টার, বিজয়সরণি ও মতিঝিল স্টেশন হবে আইকনিক স্টেশন। বাকিগুলো সাধারণ স্টেশন থাকবে। স্টেশনগুলো হলোÑ উত্তরা (উত্তর), উত্তরা (কেন্দ্র), উত্তরা (দক্ষিণ), পল্লবী, মিরপুর ১১, মিরপুর ১০, কাজিপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয়সরণি, ফার্মগেট, কাওরানবাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ সচিবালয় ও মতিঝিল।

জাপানের সহযোগিতায় বাস্তবায়ন হচ্ছে ঢাকার প্রথম মেট্রোরেল। এই রুটে ২৪ সেট ট্রেন চলাচল করবে। প্রত্যেকটি ট্রেনে থাকবে ছয়টি করে কার। যাত্রী নিয়ে ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার বেগে ছুটবে এ ট্রেন। উভয় দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ হাজার যাত্রী বহনের সক্ষমতা থাকবে মেট্রোরেলের।
জানা গেছে, ২০১৮ সালের আগস্ট মাসে আগারগাঁও থেকে কাওরানবাজার পর্যন্ত মেট্রোরেলের অবকাঠামো নির্মাণ শুরু হয়।

বর্তমানে এ অংশের পরিষেবা স্থানান্তর, চেক বোরিং, ট্রায়াল ট্রেঞ্চ, টেস্ট পাইল ও স্থায়ী বোর্ড পাইল সম্পন্ন হয়েছে। ১০৬টি পিয়ার কলামের মধ্যে ১০৫টি পিয়ার কলাম সম্পন্ন হয়েছে। ২০৩টি পাইল ক্যাপের মধ্যে ১২৮টি সম্পন্ন হয়েছে। বর্তমানে ফার্মগেট স্টেশনের উপকাঠামো নির্মাণকাজ চলছে।
প্রকল্পের রেল কোচ ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সংগ্রহের কাজ ২০১৭ সালে শুরু হয়।

বগি নির্মাণের কাজ ২০১৯ সালের ১৬ এপ্রিল জাপানে শুরু হয়। যাত্রীবাহী কোচ (কার বডি) নির্মাণের কাজ জাপানে শুরু হয়েছে। মেট্রো ট্রেনের মকআপ গত ২৬ ডিসেম্বর ২০১৯ সালে উত্তরা ডিপোতে এসে পৌঁছেছে। এই ডিপোতে ৩০টি কোচ রাখা যাবে বলে দিয়াবাড়ী ডিপো সংশ্লিষ্টরা জানান।

দ্বিতীয় মেট্রোরেল সেট শিপমেন্ট সম্ভাব্য তারিখ ১৫ এপ্রিল। মংলা বন্দর হয়ে উত্তরাতে এসে পৌঁছাবে ১৩ জুন। তৃতীয় শিপমেন্ট ১৩ জুন এবং ঢাকায় পৌঁছাবে ১৩ আগস্ট। মেট্রো ট্রেন সেট বাংলাদেশে আসার পর পর্যায়ক্রমে ইন্টেগ্রেটেড টেস্ট শুরু করা হবে।

এর পরই হবে ট্রায়াল রান।
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান প্রত্যাশা ব্যক্ত করে বলেন, আমরা আশা করছি মহান বিজয় দিবসে বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তীতে উত্তরা থেকে আগারগাঁও রুটে মেট্রোরেল চালু করতে পারব। আমাদের দেশীয় ও বিদেশী এক্সপার্টরা এ জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব