বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

ময়মনসিংহে তৌহিদ হত্যা কান্ডে আশিক গ্রেফতার, পুলিশ সুপারের সংবাদ সম্মেলন

গোলাম কিবরিয়া পলাশ (ময়মনসিংহ জেলা প্রতিনিধি): ময়মনসিংহ নগীরের তিনকোনা পুকুরপাড় এলাকার একটি মেসে ঢুকে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাককানইবি) ছাত্র তৌহিদুল ইসলাম খানকে (২৪) হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় মূল ঘাতক আশিকুজ্জামান আশিককে (২৭) গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার (৪ মে) বিকেল ৩ টায় জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সুপার মোহা. আহমার উজ্জামান।

পুলিশ সুপার জানান, গ্রেফতারকৃত আসামি একজন এলাকার পেশাদার চোর ও মাদকসেবী। ঘটনার দুইদিন আগে ওই মেসের গলি রাস্তার মাথায় রমজান মাসে সিগারেট খাওয়া নিয়ে ঘাতক আশিককে ভৎসনা করেন জাককানইবির ছাত্র তৌহিদ। তখন এনিয়ে তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এসময় তৌহিদের হাতে থাকা মোবাইলের প্রতি লোভ হয় আশিকের। পরে তৌহিদের পিছনে পিছনে বাসায় গিয়ে তার রুম দেখে আসে সে। তিনি আরও জানান, ঘটনার দিন শুক্রবার (১ মে) রাত ৩ টার দিকে সে বাসার ছাদ দিয়ে মোবাইল চুরি করতে গেলে তৌহিদ তাকে ধরে ফেলে।

এসময় উভয়ের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। এক পর্যায়ে পাশে থাকা রড দিয়ে তৌহিদকে আঘাত করে রক্তাক্ত করে পালিয়ে যায়। পরে বাসার মালিক নিচে নেমে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তৌহিদ হত্যা নিয়ে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন যেভাবে গ্রেফতার হল ঘাতক। হত্যার পরপরই এ বিষয়ে নিহতের বাবা মো. সাইকুল ইসলাম বাদি হয়ে কোতায়ালি মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে মেধাবী এ ছাত্রের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনের জন্য সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা এবং থানা পুলিশকে নির্দেশনা দিয়ে সদর সার্কেল ও জেলা পুলিশ সুপার ব্যক্তিগতভাবে তদারকি করেন, পুলিশ সুপার জানান।

প্রাথমিকভাবে সংঘটিত ঘটনাটি চুরি সংক্রান্ত প্রতীয়মান হওয়ায় ডিবি এবং থানা পুলিশ যৌথ অভিযানের ভিত্তিতে তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে মূল ঘাতক আশিকুজ্জামান আশিককে ঘটনার দুদিন পর রোববার (৩ মে) বিকেলে নগরের আকুয়া বোর্ডঘর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার দেখানো মতে হত্যাকাণ্ডের সময় পরিহিত রক্তমাখা প্যান্ট ও টিশার্ট গাজীপুরের শ্রীপুর এমসি বাজার থেকে এবং হত্যায় ব্যবহৃত লোডটি ওই মেসের পাশের পুকুর থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।

সোমবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত আসামি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলেও জানান পুলিশ সুপার। সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবীর, মো. আল আমিন, মো. শাহজাহান, ডিবির ওসি শাহ কামাল আকন্দ, কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন

প্রযুক্তি সহায়তায় ইন্টেল ওয়েব